বিএনসিসির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে বিএনসিসি ক্লাবের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

লেখকঃ মোঃ আজিবুর রহমান রাজিব। সাধারণ সম্পাদক, বিএনসিসি ক্লাব।

বিএনসিসি-বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর একটি ট্রাই সার্ভিসেস ভলান্টিয়ার রিজার্ভ বাহিনী। আর্মির সাথে সমন্বয় করে স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে সেনা শাখা, নৌ শাখা ও বিমান শাখার সমন্বয়ে গঠিত বিএনসিসি। বিএনসিসি একটি প্যারা মেলিটারি প্রতিরক্ষা বাহিনী। বিএনসিসি ট্রেনিং এর মাধ্যমে দেশের তরুনদের মধ্য থেকে সশস্ত্র প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ভবিষ্যতের কান্ডারি হিসেবে তৈরি করা ও তরুণদের মাঝে লুকায়িত প্রতিভা খুঁজে বেরকরে দেশের যে কোন ক্রান্তি কালে কাজ করার জন্য রিজার্ভ বাহিনী হিসেবে গরে তোলা হচ্ছে মুল লক্ষ।

৪১ বছর আগে ১৯৭৯ সালের ২৩ মার্চ প্রতিষ্ঠিত হয় বিএনসিসি যাহার মোটো হচ্ছে জ্ঞান ও ডিসিপ্লিন, আজ ২৩ মার্চ ২০২০ বিএনসিসির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী অতান্ত আবেগ অনুভূতি ভালোবাসা ও শ্রদ্ধার মাধ্যমে সারা বাংলাদেশের বর্তমান ক্যাডেট ও এক্স ক্যাডেট বৃন্দকে বিএনসিসি ক্লাবের পক্ষ থেকে জানাচ্ছি শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

প্রতিষ্ঠা কাল থেকে আজ বাংলাদেশে প্রায় ১২ লক্ষ্য ক্যাডেট এক্স ক্যাডেট হয়েছেন। দেশের সকল এক্স ক্যাডেট বৃন্দকে একত্রিত করে দেশের প্রয়োজনে কাজ করার জন্য এক্স ক্যাডেট সংগঠন বিএনসিসি ক্লাব গঠিত হয়। দেশের প্রয়োজনে কাজ করাই বিএনসিসি ক্লাবের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য যাহার প্রমান বিএনসিসি ক্লাব বার বার দিয়ে যাচ্ছে।

বাংলাদেশে যখন অনিয়ন্ত্রিত ভাবে রোহিঙ্গা প্রবেশ করলো তখন বাংলাদেশ একটি রাষ্ট্রীয় ক্রাইসিস এর মধ্য দিয়ে যাচ্ছিল তখন কক্স বাজার জেলার মাননীয় জেলা প্রশাসকের আমন্ত্রণে বিএনসিসি ক্লাবের একটি দক্ষ ও সাহসী টিম ১২ টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পের দায়িত্ব নেন তাদের খাবার বিতরণ, ডিসিপ্লিন, জরীপ, নিবন্ধন থেকে শুরু করে সমস্ত দায়িত্ব বিএনসিসি ক্লাব এর সদস্যগণ পরিচালনা করেন যেখানে সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করার সৌভাগ্য হয়েছিল আমার। আমি দেখেছি   খাবারের অভাবে মানুষ কতটা হিংস্র হতে পারে সেই হিংস্র বাঘের দলকে নিয়ন্ত্রণ করেছে বিএনসিসি ক্লাবের দক্ষ প্রশিক্ষিত প্রতিটি সদস্য।

প্রতি বছর বন্যায় বিএনসিসি ক্লাবের সদস্যগণ ত্রাণ বিতরণ করে থাকেন নিজেদের অর্থায়নে তাছাড়া  প্রতি বছর শীতে গরীব অসোহায় মানুষের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরণ করে থাকে বিএনসিসি ক্লাব। ট্রাফিক সপ্তাহে ঢাকার ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ করে পত্রিকার হেডলাইন “রাজধানী জুরে সড়ক নিয়ন্ত্রণে বিএনসিসি ক্লাব” হয়েছে বিএনসিসি ক্লাব।

করোনা ভাইরাসের সংক্রামণে বর্তমানে সারা বিশ্বে মহামারী ঘোষণা করা হয়েছে, বিগত একশত বছরের মধ্যে সবচাইতে বিপদের মধ্যদিয়ে যাচ্ছেপৃথিবী। যেখানে বাসার বাহিরে গেলেই সম্ভাবনা থাকে সংক্রমণের সেই বাধা উপেক্ষা করে ঢাকার জনবহুল ফার্মগেট, শ্যামলী, মহাখালী সহ বিভিন্ন স্থানে রিক্সা চালক, গারি চালক, হেল্পার সহ সাধারণ মানুষের মাঝে বিএনসিসি ক্লাবের প্রশিক্ষিত এক্স ক্যাডেট বৃন্দ করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধ করার লক্ষে নিজেদের অর্থায়নে হ্যান্ড স্যানিটাইজার  মাস্ক ও জন সাধারণকে সচেতন করার জন্য লিফলেট বিতরণ করেন।

১৯৭৯ সালের ২৩ মার্চ যেই লক্ষ্য নিয়ে বিএনসিসি প্রতিষ্ঠা হয়েছিল সেই লক্ষ পুরন করার জন্যই আমরা বিএনসিসি এক্স ক্যাডেট কাজ করে যাচ্ছি এবং কাজ করে যাবো।

বিএনসিসির সমস্ত ক্যাডেট, এক্স ক্যাডেট, অফিসার, বিএনসিসির মাননীয় ডিরেক্টর গেনারেল স্যার সহ সকলকে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি।

 মোঃ আজিবুর রহমান রাজিব।

সাধারণ সম্পাদক, বিএনসিসি ক্লাব।

তারিখঃ ২৩/০৩/২০